আজ সেই ভয়াল ১৫ই আগস্ট : কাঁদো বাঙালি কাঁদো

আশিকুর রহমান : আবারো ঘুরেফিরে এলো ১৫ ই আগস্টের ভয়াল কালরাত্রি। ১৯৭৫ সালের ১৫ ই আগস্ট এই দিনে কিছু বিপথগামী সেনা সদস্যের নির্মম বুলেটের আঘাতে প্রাণ দিতে হয়েছেন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কে।

ইতিহাসের এই জঘন্যতম হত্যাকান্ড থেকে রেহাই পায়নি বঙ্গবন্ধুর অতি আদরের সন্তান ছোট্ট শেখ রাসেল সহ মুজিব পত্নী বেগম মুজিব, শেখ কামাল, সুলতানা কামাল, শেখ জামাল, রোজী জামাল, শেখ আবু নাসের, ভগ্নিপতি আব্দুর রব সেরনিয়াবাত, তার ১৪ বছর বয়সী মেয়ে বেবী, ১২ বছরের ছেলে আরিফ, চার বছরের নাতি বাবু (আবুল হাসনাত আবদুল্লার ছেলে), ভাতিজা শহীদ সেরনিয়াবাত, ভাগ্নে আবদুল নইম খান রিন্টু, তিনজন অতিথি এবং বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে কর্মরত চারজন কাজের লোক ।

সাথে ভাগ্নে শেখ ফজলুল হক মনি, তার অন্তঃসত্বা স্ত্রী আরজু মনি এবং বঙ্গবন্ধুর জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসা কর্নেল জামিলকেও সেদিন প্রাণ দিতে হয়েছে।সেদিন রক্তে রঞ্জিত হয়ে গিয়েছিলো বঙ্গবন্ধুর ধানমন্ডির ৩২ নম্বর এর স্মৃতিবিজড়িত বাড়িটি। থেমে গিয়েছিলো সেই ঐতিহাসিক কণ্ঠস্বর, শোকাভূত হয়ে পড়েছিলো সেদিন সারাদেশ।

বাংলাদেশে অবস্থান না করে সেইদিন প্রাণে বেঁচে গিয়েছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর দুই কন্যা বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা।

আজকের দিনটিতে শোকাহত জাতি গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করবে ইতিহাসের মহানায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। যার জন্ম না হলে আজ আমরা স্বাধীন বাংলাদেশ পেতাম না, তিনিই ইতিহাসের মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।