রাস্তায় গরুর বাজার বসালে আইনানুগ ব্যবস্থা : ডিসি

রনজিত কুমার শীল, চট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী বলেছেন, আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে অনুমোদিত কোরবানির গরুর বাজারের পাশাপাশি জেলার বিভিন্ন স্থানে রাস্তার উপর যত্রতত্র গরুর বাজার বসে। ফলে একদিকে গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোতে প্রচন্ড যানজটের সৃষ্টি হয়, অন্যদিকে ভোগান্তিতে পড়ে সর্বস্তরের জনগণ।

তাই ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে অসাধু ব্যবসায়ী চক্র রাস্তার উপর যত্রতত্র গরুর বাজার বসালে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। অনুমোদিত গরুর বাজারগুলোতেও নির্দিষ্ট স্থান ছাড়া সড়কের উপর গরু বিক্রি করা যাবে না।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

চট্টগ্রামের উন্নয়নের কথা তুলে ধরে জেলা প্রশাসক বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে চট্টগ্রামের জন্য বিগত বছরের চেয়ে এ বছর অনেক বেশি বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। চাক্তাই খালের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে বহুমুখী সংস্কারের জন্য সরকার ৪ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে। সিটি কর্পোরেশন, সিডিএ ও ওয়াসার সাথে সমন্বয় করে উন্নয়নের ধারা আরো গতিশীল করার পরামর্শ দিয়েছে।

ডিসি বলেন, সারা দেশে ভাইরাস জনিত রোগ চিকুনগুনিয়ার বিষয়ে সচেতনতার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, এডিস মশা উৎপাত বন্ধ করতে হবে। এর জন্য জনসচেতনতার বিকল্প নেই।

তিনি বলেন, চট্টগ্রামে ট্রাফিক ব্যবস্থাপনার উন্নয়নসহ যানজট নিরসনে সরকারীভাবে ট্রাক ও বাস টার্মিনাল গড়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। টার্মিনালের জন্য জায়গা চিহ্নিত করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে সিটি কর্পোরেশনে ও সিডিএসহ সংশ্লিষ্টদের সাথে আলোচনা করা হবে।

আগামী ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস যথাযথভাবে পালনের জন্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীদের মনিটরিং করার আদেশ দেন জেলা প্রশাসক।

চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) নুরে আলম মিনা বলেন, চট্টগ্রাম জেলার আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি মোটামুটি ভাল। আসন্ন পবিত্র ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে সার্বিক আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে। কোরবানির পশুর হাটে যে কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ নিয়োজিত থাকবে। উপজেলাগুলোর মূল সড়কগুলো যে সব স্থানে কোরবানির পশুর হাট বসবে সেখানে যানজট নিরসন ও জনদুর্ভোগ রোধে ট্রাফিক পুলিশ কাজ করবে।

এসপি বলেন, চট্টগ্রাম জেলায় পুলিশের লোকবল সংকট থাকা সত্তে¡ও আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি মোটামুটি ভালো রয়েছে। বার্মা থেকে টেকনাফ হয়ে সড়ক পথে ইয়াবা পাচার ও অনেকটা কমে এসেছে। বার্মা-টেকনাফ সীমান্তে বর্ডার গার্ড ও আর্মিসহ সেখানে দায়িত্বরত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা আন্তরিকভাবে উদ্যোগ না নেয়ায় কারণে সড়ক ও সমুদ্রপথে ইয়াবা পাচার বন্ধ হচ্ছে না। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি জনপ্রতিনিধিসহ সকলের সহযোগিতা পেলে ইয়াবা ও নানান ধরনের মাদক রোধ করা সম্ভব হবে।

জেলা ট্রাক- কভার্ডভ্যান মালিক গ্রæপের সভাপতি মো. আবদুল মান্নান বলেন, যানজট নিরসনকল্পে রাস্তার উপর ও ফুটপাতে যত্রতত্রভাবে গড়ে উঠা অবৈধ বাজার ও স্থাপনাগুলো উচ্ছেদ জরুরি। জেলা প্রশাসকের নির্দেশনায় উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ সংশ্লিষ্টরা আন্তরিক হলে রাস্তার অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেয়া সম্ভব হবে।

জেলা প্রশাসক মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় মাল্টিমিডয়ার মাধ্যমে গত জুলাই মাসের খাতওয়ারী অপরাধ চিত্র, সভার সিদ্ধান্ত ও অগ্রগতি তুলে ধরেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) মো. মমিনুর রশিদ।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা পুলিশ সুপার নুরেআলম মিনা, সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ আজিজুর রহমান সিদ্দিকী, মহানগর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. মোজাফফর আহম্মদ, জেলা পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এডভোকেট একেএম সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, উপজেলা চেয়ারম্যান এহছানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল (রাউজান), আব্দুল জব্বার চৌধুরী (চন্দনাইশ), মুহাম্মদ জহিরুল ইসলাম (বাঁশখালী), মুহাম্মদ আলী শাহ (রাঙ্গুনিয়া), তৌহিদুল হক চৌধুরী (আনোয়ারা), মাহবুবুল আলম চৌধুরী (হাটহাজারী), চেম্বারের পরিচালক অহীদ সিরাজ চৌধুরী স্বপন।

জেলা ট্রাক- কভার্ডভ্যান মালিক গ্রæপের সভাপতি মো. আব্দুল মান্নান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজমুল ইসলাম ভ‚ঁইয়া (সীতাকুÐ), গৌতম বাড়ৈ (আনোয়ারা), লুৎফর রহমান (চন্দনাইশ), মোহাম্মদ উল্ল্যাহ (সাতকানিয়া), মোহাম্মদ কামাল হোসেন (রাঙ্গুনিয়া), আফিয়া আক্তার (বোয়ালখালী), আক্তার উননেছা শিউলি (হাটহাজারী), হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নিতাই প্রসাদ ঘোষ প্রমুখ। সভায় বিভিন্ন উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, পৌর মেয়র, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তা ও সরকারের বিভিন্ন স্তরের কর্মরত কর্মকর্তাসহ আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।