মিরপুরের বিহারি ক্যাম্পের বিহারিদের আত্মাহুতির হুমকি

নিউজ ডেস্ক : উর্দু স্পিকিং পিপুলস ইউথ রিহ্যাবিলিটেশন মুভমেন্টের সভাপতি মো: সাদাকাত খান ফাক্কু জানিয়েছেন মিরপুরের বিহারি ক্যাম্প আবারো ভাঙা হলে উর্দুভাষীরা আত্মাহুতি দেবে।

ক্যাম্প ভাঙচুরের প্রতিবাদে গতকাল আগারগাঁয়ের জাতিসঙ্ঘ অফিসে স্মারকলিপি দিয়ে আসার পর তিনি এ ঘোষণা দেন।

সাদাকাত হোসেন ফাক্কু জানান,ঢাকার আশপাশে কোনো সুবিধাজনক স্থানে আমাদের নিরাপত্তা ও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে পুনর্বাসনের অঙ্গীকার ছিলেন।২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিহারিদের পুনর্বাসন করার ঘোষণা দিলেও তা বাস্তবায়ন করা হয়নি।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন গত ২১ মে থেকে বিহারি ক্যাম্পগুলো ভাঙতে শুরু করে। এর মধ্যেই চারটি ক্যাম্প ভেঙেছে।বাকি ক্যাম্পগুলোও ভাঙার ঘোষণা দিয়েছে। ক্যাম্পগুলো ভাঙার কারণে কয়েক শ মানুষ রাস্তায় অথবা খোলা মাঠে রাত যাপন করছেন।

সাদাকাত খান ফাক্কু বলেন, আরো ১০-১২টি ক্যাম্প ভাঙা হলে আরো প্রায় দুই হাজার পরিবার বাস্তুহারা হবে।

তিনি বলেন, বিহারিদের পুনর্বাসন না করে ভাঙার বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা রয়েছে। তা সত্ত্বেও আমাদের উচ্ছেদ করা হচ্ছে।

এর প্রতিবাদে বিহারিরা গতকাল জাতিসঙ্ঘ অফিসে স্মারকলিপি দিয়েছেন। স্মারকলিপি গ্রহণ করেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত জাতিসঙ্ঘ প্রতিনিধির সহকারী জুনায়েদ আহমেদ।

উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালের ডিসেম্বরের পরে মিরপুরের বিভিন্ন স্থানে অবস্থানরত বিহারিদের মিরপুরের ১০, ১১ ও ১২ নম্বরে ক্যাম্প করে দেয়া হয়।

সাদাকাত ফাক্কু বলেন, ১৯৭১ সালের পর থেকে আমরা আছি।পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করে দেয়ার অঙ্গীকার করে তা বাস্তবায়ন করা হয়নি।