কাটছেনা হজযাত্রীদের ভিসা জটিলতা

নিউজ ডেস্ক: বিমানের হজ ফ্লাইটে যাত্রী সংকট কোনমতেই কাটছে না। হজযাত্রী পরিবহনে সাউদিয়া এয়ারলাইন্সের মাত্র ৪টি ফ্লাইট বাতিল হলেও বিমানের বাতিল হয়েছে ১৭টি।

শুধু তাই নয়, প্রতিদিন শত শত আসন খালি রেখেই উড়াল দিচ্ছে বিমানের হজ ফ্লাইট। এমন অবস্থার জন্য ধর্মমন্ত্রী হজ এজেন্সিগুলোর অতিরিক্ত মুনাফার লোভকে দায়ী করলেও এজেন্সিগুলো দায় চাপাচ্ছে বিমানের ওপর।

একের পর এক হজ ফ্লাইট বাতিলের ক্ষতি কিছুটা পোষাতে গত শনি ও মঙ্গলবার ৩টি বিশেষ ফ্লাইটের ঘোষণা দেয় বিমান। কিন্তু যাত্রী না পাওয়ায় ৩টি ফ্লাইটই বাতিল হয়।

পাশাপাশি অব্যাহত থাকে হজের নিয়মিত শিডিউলের ফ্লাইট বাতিল। এমনকি যাত্রীর অভাবে শত শত আসন ফাঁকা রেখেই যেতে থাকে হজ ফ্লাইট। শুধু মঙ্গলবারই বিমানের ৪টি ফ্লাইটে আসন ফাঁকা গেছে ৪শটি।

এমন অবস্থার জন্য প্রাথমিকভাবে ৪৮টি হজ এজেন্সির গাফিলতিকে চিহ্নিত করে ধর্মমন্ত্রণালয়। এরমধ্যে ২৬টি এজেন্সি পুলিশ ভেরিফিকেশন, সৌদিতে বাড়ি ভাড়া ও মোয়াল্লেম ফি সংক্রান্ত জটিলতার নিরসন করে ভিসার প্রক্রিয়া শুরু করলেও বাকি ২২টি এজেন্সি এখনো রয়েছে নানা জটিলতায়।

যাত্রী সংকট কাটাতে সব এজেন্সিকেই দশ তারিখের মধ্যে ভিসার আবেদন ও টিকিট কনফার্ম করার নির্দেশ দেয় কর্তৃপক্ষ। তবে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ মানলেও ফ্লাইট বাতিলের জন্য হজ এজেন্সিগুলোর সংগঠন হাব দায় চাপাচ্ছে বিমানের ওপর।

এবছর ২৪শে জুলাই হজ ফ্লাইট শুরুর পর গত ১৬ দিনে সৌদিতে গেছেন ৪৮ হাজার হজযাত্রী। বাকি ১৮ দিনে পরিবহন করতে হবে প্রায় ৭৯ হাজার হজযাত্রীকে।