বাংলাদেশের পর্যটন শিল্পের প্রসার ঘটানো সম্ভব: স্পিকার

নিউজ ডেস্ক:  সিপিএ চেয়ারপারসন ও জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, দেশ-বিদেশের পর্যটকদের জন্য সকল ধরনের সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করে বাংলাদেশের পর্যটন শিল্পের প্রসার ঘটানো সম্ভব। গতকাল ভিয়েতনামের কোয়াং নিন প্রদেশের পর্যটন সিটি হা লং সিটি পরিদর্শনে কোয়াং নিন প্রদেশের স্টান্ডিং ডেপুটি সেক্রেটারি দো থি হোয়াংয়ের সঙ্গে অনুষ্ঠিত দ্বি-পক্ষীয় সভায় তিনি এসব কথা বলেন। এর আগে স্টান্ডিং ডেপুটি সেক্রেটারি স্পিকারকে অভ্যর্থনা জানান।

সংসদ সচিবালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা জানানো হয়। এ সময় সংসদ সদস্য ইমরান আহমেদ, পংকজ নাথ, এএম নাঈমুর রহমান ও সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মো. আবদুর রব হাওলাদার এবং ভিয়েতনাম ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির পররাষ্ট্র বিষয়ক কমিটির সদস্য ও কোয়াং নিন প্রদেশের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি অ্যসোসিয়েশনের (সিপিএ) নির্বাহী কমিটির চেয়ারপারসন ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, পৃথিবীর সর্ববৃহৎ সমুদ্র সৈকতের অবস্থান বাংলাদেশে। পৃথিবীর সর্ববৃহৎ ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট সুন্দরবনের বড় অংশ বাংলাদেশে। এছাড়াও বাংলাদেশের পার্বত্য অঞ্চল প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি।

স্পিকার বলেন, বিশ্বের যে দেশ পর্যটন শিল্পে যত উন্নতি করতে পেরেছে সে দেশ অর্থনৈতিকভাবে তত লাভবান হয়েছে। ভিয়েতনামের হা লং বে বিশ্ব পর্যটকদের জন্য আকর্ষণীয়। তিনি বাংলাদেশের অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট ঘিরে রিভার ক্রুজিং ব্যবস্থা গড়ে তোলার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

ভিয়েতনামের কোয়াং নিন প্রদেশের স্টান্ডিং ডেপুটি সেক্রেটারি দো থি হোয়াংয়ের বলেন, পর্যটন শিল্পে ভিয়েতনামের সাথে বাংলাদেশের অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মাধ্যমে দু’দেশের পর্যটন শিল্প সমৃদ্ধ হবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট, প্রধানমন্ত্রী ও স্পিকারের সফরের মাধ্যমে দু’দেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ভবিষ্যতে আরও সুদৃঢ় হবে।