জাতীয় পাবলিক সার্ভিস দিবস আজ

নিউজ ডেস্ক: আজ জাতীয় পাবলিক সার্ভিস দিবস। বাংলাদেশের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও সরকারের বিভিন্ন সংস্থার বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দেশব্যাপী দিবসটি পালিত হচ্ছে। এবার বাংলাদেশে এই প্রথমবারের মতো দিবসটি পালিত হচ্ছে। আজ জনপ্রশাসনে উদ্ভাবনী ধারণাকে কাজে লাগিয়ে নাগরিক সেবা সহজীকরণের স্বীকৃতিস্বরূপ ‘জনপ্রশাসন পদক-২০১৭’ প্রদান করাও হবে।

দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

বাণীতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ সুশাসন নিশ্চিত করে নাগরিক সেবা সহজ, সুলভ, স্বচ্ছ ও জবাবদিহিমূলক করতে অর্পিত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করার জন্য প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিয়োজিত সিভিল সার্ভেন্টরা সরকারি কার্য সম্পাদনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকেন। সংবিধানের আলোকে সিভিল সার্ভিস মূলত বিবিধ আইনকানুন, বিধিবিধান, পরিপত্র, আদেশ-নিষেধ দ্বারা পরিচালিত। ব্রিটিশ আমলের উত্তরাধিকার বতর্মান সিভিল সার্ভিসে যুগের চাহিদা অনুযায়ী গুণগত অনেক পরিবর্তন এসেছে।

প্রধানমন্ত্রী তার বাণীতে বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের অংশ হিসেবে আইসিটি কার্যক্রমকে উন্নতকরণ, সহজতরকরণ ও স্বল্প খরচে প্রান্তিক জনগণের কাছে সেবা পৌঁছানোর জন্য সরকারের আন্তরিক প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। একটি দক্ষ, কার্যকর, ফলপ্রসূ, আর্থিক সাশ্রয়ী ও সময়োপযোগী প্রশাসনিক ব্যবস্থা টেকসই উন্নয়নের চাবিকাঠি। বাংলাদেশে সিভিল প্রশাসন সরকারের নির্বাহী অঙ্গ হিসেবে দেশের জনগণের সেবা ও কল্যাণে আন্তরিকভাবে নিয়োজিত। জনপ্রশাসন পদক প্রদানের সঙ্গে সরকারি কর্মচারীদের প্রণোদনাদানের বিষয়টিও জড়িত। ইতোমধ্যে সরকারি কর্মচারীদের বেতন-ভাতা উল্লেখযোগ্য পরিমাণ বাড়ানো হয়েছে যাতে তারা সম্মানের সঙ্গে জীবনধারণ করতে পারেন। আমি মনে করি, এ পুরস্কার প্রবর্তনের ফলে সরকারি কর্মচারীরা আগামী দিনগুলোতে আরও উৎসাহ নিয়ে কাজ করবেন এবং বিশ্বায়নের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় নিজেদের আরও দক্ষ ও উপযোগী করে গড়ে তুলবেন।