সার্বভৌমত্ব রক্ষার শর্তে আলোচনায় আগ্রহী কাতার

নিউজ ডেস্ক: মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতারের সঙ্গে সৌদি আরবসহ অন্যান্য দেশগুলোর মধ্যে চলমান সংকট নিরসনে দেশটি তাদের সার্বভৌমত্ব রক্ষার শর্তে আলোচনায় আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানি বলেছেন, তার দেশ কূটনৈতিক সংকট নিরসনে সৌদি নেতৃত্বাধীন দেশগুলোর সঙ্গে আলোচনা করতে প্রস্তুত। তারা সার্বভৌমত্ব রক্ষার শর্তেই আলোচনায় রাজি হয়েছে। খবর আল জাজিরার।

‘কাতারের সার্বভৌমত্বকে শ্রদ্ধা করা হলেই আমরা আলোচনার মাধ্যমে যেকোন অমীমাংসিত সমস্যার সমাধান করতে আগ্রহী। এটা পরিস্কার যে, আমাদের বিরুদ্ধে এই ষড়যন্ত্র পূর্ব পরিকল্পিত। আমরা পরীক্ষা দিয়েছি এবং এতে উত্তীর্ণও হয়েছি।’

শুক্রবার টেলিভিশনে দেয়া এক বিবৃতিতে শেখ তামিম বলেন, যেকোন সমাধানই কাতারের সার্বভৌমত্বের প্রতি শ্রদ্ধাপূর্ণ হতে হবে। এমনটা হলেই আমরা আলোচনা করতে প্রস্তুত আছি। আরব বিশ্বের প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে সংকট শুরুর পর এই প্রথম টেলিভিশনে ভাষণ দিলেন শেখ তামিম।

শেখ তামিম বলেন, কাতারের প্রতি নজিরবিহীর আচরণ করেছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো। এই সংকটে কুয়েতের মধ্যস্ততার চেষ্টা এবং সংকট নিরসনে যুক্তরাষ্ট্র, তুরস্ক এবং জার্মানির এগিয়ে আসার ঘটনাকে সম্মান জানিয়েছেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘কাতারের সার্বভৌমত্বকে শ্রদ্ধা করা হলে আমরা আলোচনার মাধ্যমে যেকোন অমীমাংসিত সমস্যার সমাধান করতে আগ্রহী।’

শেখ তামিম আরো বলেন, ‘এটা পরিস্কার যে, আমাদের বিরুদ্ধে এই ষড়যন্ত্র পূর্ব পরিকল্পিত। আমরা পরীক্ষা দিয়েছি এবং এতে উত্তীর্ণও হয়েছি।’

আলোচনার মাধ্যমে খুব দ্রুত এই সমস্যা সমাধানে অবরোধকারী দেশগুলো এগিয়ে আসবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘আমাদের প্রতিবেশি দেশগুলো যেভাবে আমাদের নাগরিকদের তাড়িয়ে দিয়েছে তাতে আমরা মর্মাহত হয়েছি। কাতার সম্পর্কে মিথ্যাচার করেছে তারা। তিনি এসব অপপ্রচারকে আইনের লঙ্ঘন ও নৈতিকতা বহির্ভূত কান্ড হিসেবে উল্লেখ করেছেন।’

গত জুনে সন্ত্রাসবাদে সমর্থন এবং ইরানের সঙ্গে মিত্রতার অভিযোগ এনে কাতারের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন এবং মিশর। এর কিছুদিন পর তারা কাতারের কাছে কিছু দাবি উত্থাপন করে। সেসব দাবি মেনে নেয়নি কাতার। এছাড়া দেশটি বরাবরই সন্ত্রাসবাদে সমর্থন দেয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছে।