সাকিব আল হাসানের চীনের মহাপ্রাচীর পরিদর্শন

নিউজ ডেস্ক: পৃথিবীর সপ্তাশ্চর্যের একটি চীনের মহাপ্রাচীর। ১ জুলাই সেখানে দেখা গেল কয়েকজন বাংলাদেশি ছবি তুলছেন, সেলফি তুলছেন। আনন্দে আত্মহারা সবাই। আর হবেনই বা না কেন? গ্রেট ওয়ালে যে তাঁদের সঙ্গে আছেন আমাদের গ্রেট ক্রিকেটার বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। সঙ্গে তাঁর স্ত্রী শিশির এবং মেয়ে আলাইনা। হুয়াওয়ের একটি প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হয়ে সাকিব আল হাসানের সঙ্গে চীন ভ্রমণের সুযোগ পেয়েছিলেন বাংলাদেশের কয়েকজন ভক্ত। দলের সঙ্গে ছিলেন আলোকচিত্রী প্রীত রেজা। এবারের প্রচ্ছদ প্রতিবেদনে তিনিই লিখেছেন এই ভ্রমণবৃত্তান্ত।

কেব্‌ল কারে আমার সামনের দুই আসনে মেয়ে আলাইনাকে নিয়ে বসে আছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান ও তাঁর স্ত্রী উম্মে আহমেদ শিশির। ১ জুলাই আমরা চলেছি মহাপ্রাচীর দেখতে। আমার বেশ উচ্চতাভীতি আছে। কেব্‌ল কার যখন উঠছিল, ভীষণ ভয় হতে থাকল। এদিকে দেখি সাকিব নানা কথা বলে শিশিরকে ভয় দেখানোর চেষ্টা করছেন। শিশিরও কম নন। দুজন ভীষণ মজা করলেন কেব্ল কারে বসেই। তাঁদের এসব কাণ্ড দেখতে দেখতেই ভয়ডর সব চলে গেল।

হোটেল থেকে মহাপ্রাচীরে যাওয়ার দূরত্ব প্রায় দুই–আড়াই ঘণ্টার। সাকিব ও তাঁর পরিবারের সঙ্গে আমিও একই গাড়িতে উঠেছি। মহাপ্রাচীর যাত্রার সময়টা আমাদের কাটল কথাবার্তায়। চীন সফরের শুরু থেকেই সাকিবকে নিবিড়ভাবে দেখার সুযোগ হয়েছে। এই গাড়িতে বসে সেই জানা যেন আরও বাড়ল। সাকিবের রসিকতা করার ক্ষমতা দেখে অবাক হলাম। এভাবেই একসময় চলে এলাম মহাপ্রাচীরে। এই প্রাচীর কতটা যে বিশাল ও বিপুল, তা ছবি দেখে বোঝা কঠিন। বিস্ময় জাগে ক্ষণে ক্ষণে।