ব্যালন ডি’অর জয়ের জন্য রোনালদো ফেভারিট : পিকে

নিউজ ডেস্ক: জেরার্ড পিকের দৃষ্টিতে ব্যালন ডি’অরের জন্য ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ফেবারিট। ২০১৬-১৭ মৌসুমে দুর্দান্ত পারফরমেন্স করায় চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদ তারকা রোনালদো এবারের ব্যালন ডি’অর জিতবেন বলে মনে করেন বার্সেলোনার ডিফেন্ডার পিকে।

গেল মৌসুমে রিয়াল মাদ্রিদকে স্প্যানিশ লা-লীগা ও উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগের শিরোপা জয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন রোনালদো। তাই পরবর্তী ব্যালন ডি’অর জয়ের ক্ষেত্রে স্পষ্টভাবেই রোনালদো এগিয়ে বলে মনে করছেন পিকে। কাতারের টিভি ওয়ানকে পিকে বলেন, ‘রিয়ালকে লা-লীগা ও চ্যাম্পিয়ন্স লীগের শিরোপা এনে দিয়েছেন রোনালদো। পুরো মৌসুম জুড়েই দারুণ খেলেছে সে। তাই ব্যালন ডি’অর জয়ে সে-ই ফেভারিট।’

২০১৬-১৭ মৌসুমে লা-লীগায় ২৯ ম্যাচে ২৫ গোল করেছেন রোনালদো। চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ১৩ ম্যাচে তিনি গোল করেছেন ১২টি। লা-লীগায় গোলাদাতাদের তালিকায় তৃতীয় হলেও, চ্যাম্পিয়ন্স লীগে সর্বোচ্চ গোলের মালিক হয়েছেন সিআরসেভেন। তাই গেল মৌসুমে দুর্দান্ত পারফরমেন্সর কারণে ব্যালন ডি’অর জয়ের পথে রোনালদোই ফেভারিট বলে মনে করেন পিকে, ‘তার দুর্দান্ত পারফরমেন্সে গেল মৌসুমে দু’টি বড় শিরোপা জিততে পেরেছে রিয়াল মাদ্রিদ। তাই ব্যালন ডি’অর জিততে নিজের পথটা তৈরি করে রেখেছেন রোনালদো।’

বার্সেলোনায় পিকের সতীর্থ লিওনেল মেসির পারফরমেন্সও বেশ ভালো। লা-লীগায় সর্বোচ্চ ৩৭ গোল দাতা মেসি। আর চ্যাম্পিয়ন্স লীগেও ১১ গোল করে দ্বিতীয় স্থানে মেসি। তারপরও লা-লীগা বা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ কোনটিই জিততে পারেনি বার্সেলোনা। তাই ব্যালন ডি’অর জয়ের তালিকাতে মেসির চেয়ে রোনালদোকেই এগিয়ে রাখছেন পিকে, ‘মেসিও দারুণ খেলেছে। তবে মেসির চেয়ে কিছুটা এগিয়ে রোনালদো। তারপরও ব্যালন ডি’অর জয়ের সম্ভাবনা মেসির আছে। ইতিহাসের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় মেসি এবং এরপর অন্যান্য আরো বেশকিছু দিক আছে।’

রাশিয়ায় ২০১৮ বিশ্বকাপ খেলেই জাতীয় দলকে বিদায় জানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন পিকে, ‘স্পেনের হয়ে আমি বিশ্বকাপ ও ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ জিতেছি। দল হিসেবে আমরা ইতিহাস গড়েছি। আমি দ্বিতীয়বার বিশ্বকাপ জেতার চেষ্টা করবো। আগামী বিশ্বকাপ শেষে জাতীয় দল থেকে অবসর নেব। আমরা নতুন কোচ পেয়েছি। তিনি ভালো করছেন। আমাদের জন্য তিনি ভালো কিছু করতে সক্ষম হবেন বলে আশা করছি।’

২০০৯ সালে জাতীয় দলে সুযোগ পাবার পর ৯৮টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছেন পিকে। এ সময় মাত্র ৫টি গোল করেছেন এই ডিফেন্ডার। পক্ষান্তরে ২০০৮ সালে বার্সেলোনায় যোগ দেয়ার পর ২৪৬ ম্যাচে ২১টি গোল করেন ৩০ বছর বয়সী এ তারকা খেলোয়াড়।