রাউজানে উরকিরচরের সড়কগুলো ক্ষত-বিক্ষত

এমবলোলউদ্দিন রাউজান (চট্টগ্রাম): চট্টগ্রামের রাউজানে টানা চারদিনের ভারীবৃষ্টিতে সৃষ্ট বন্যা ও হালদার অস্বাভাবিক জোয়ারেরপানির স্রোতে ক্ষতবিক্ষতহয়ে গেছে হালদা পাড়ের উরকিরচর ইউনিয়নের রাস্তাঘাট। এরমধ্যে একটিসড়কেগাড়ীচলাচলওসর্ম্পুনবন্ধরয়েছে গত এক সপ্তাহধরে। এ ইউনিয়নের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ১০/১২টি পিচঢালা সড়কের অনেকাংশ ভেঙ্গে ক্ষত বিক্ষত হয়ে চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এতে চরম দুভোর্গ পোহাতে হচ্ছে এ ইউনিয়নের হাজার হাজার বাসিন্দাদের।

 কাপ্তাই সড়কের জিয়াবাজার হয়ে উরকিরচর উচ্চ বিদ্যালয় সড়কটির ৬/৭টি স্থানে ভেঙ্গে পানি গড়িয়েপড়ছেধানীবিলে। এতে সড়কেরপাশাপাশিফসলেরওব্যাপক ক্ষতিহয়েছে। খানাখন্দকের সৃষ্টিহয়েছেঅগনিত স্থানে। এছাড়াও এ সড়কেপ্রতিদিন জোয়ারেরসময় কোমরসমানপানি রাস্তা গড়িয়েপড়ায় দীর্ঘ ৪/৫ ঘন্টাযানচলাচলসর্ম্পুণবন্ধ থাকে।

এদিকে পুর্ব উরকিরচরসওদাগরপাড়াসড়কটিরএকটি অংশ ভেঙ্গে গিয়েসর্ম্পূণ খালের সাথে মিশে গেছে। এ সড়কে গত সপ্তাহধরেযানচলাচলসম্পূর্ণ রুপে বন্ধরয়েছে। সড়কটির ভাঙ্গণ প্রতিরোধেকিছুঅংশেগার্ডওয়ালনির্মাণকরাহলেও সেটিখালেরগভীরেতলিয়ে গেছে। এসড়কদিয়েচলাচলকারীমহিউদ্দিনইমনবলেন, গত এক সপ্তাহধরেবিকল্প পথে দুইকিলোমিটারঘুরেচলাচলকরছি। এতে সময় ও টাকা দুটোয়অপচয়হচ্ছে।

ইউনিয়নেরঢাকাখালীখলিফার ঘোনাসড়কের শেখপাড়া, ইউনিয়নপরিষদ কার্যালয়েরসামনেসহ মোট ৮ টি স্থানেসড়ক ভেঙ্গে ক্ষত বিক্ষত হয়েছে। এছাড়াওমদুনাঘাট জঙ্গল সড়কেরও ১০ স্থানে ক্ষত বিক্ষত অবস্থার সৃষ্টি হওয়ায় গাড়ী চলাচল তো দুরেরকথাপায়েহাটাও দায়হয়েপড়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত উরকিরচর সড়কে নিয়মিত চলাচলকারী সাবেক ছাত্রনেতা জাহাঙ্গীর আলম সুমন বলেন, কিন্তু সাম্প্রতিক বর্ষণ ও হালদার ঢলের পানিতে সড়কগুলো তচনছ হয়ে চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। তিনি দ্রুত সড়ক সংস্কার করেজনদুর্ভোগ থেকে মুক্তি দানেরঅনুরোধজানানসংশ্লিষ্টদেরপ্রতি। তিনিজানান, উরকিরচরসড়কে জোয়ারেরসময় দীর্ঘ ৪/৫ ঘন্টাযানচলাচলসর্ম্পূণ বন্ধহয়েযায়।

কারণওসময় কোমরসমানপানিতে নিমজ্জিত থাকে এ সড়ক। এতে দুভোর্গের শেষ থাকেনাসড়কদিয়েচলাচলকারীহাজারোমানুষের। এছাড়াও মিরাপাড়া ছমিউদ্দিন শাহ সড়ক, হারপাড়া বৈইজ্জাখালী গেইট সংযোগসড়কেরঅবস্থাওকরুণ। অনেক স্থানেসৃষ্টিহয়েছেবড়বড়গর্তের। যারকারণেগাড়ীচলাচলকরতেপারছেনা। এ সড়ক দুটোদিয়েচলাচলকারীহারপাড়া স্কুলগামীশিক্ষার্থীরাওপড়েছে দুর্ভোগে।

উরকিরচরইউনিয়নপরিষদ চেয়ারম্যান সৈয়দ আব্দুলজব্বার সোহেলবলেন, এবারেরবন্যায়সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেআমারইউনিয়নের রাস্তাঘাট। অনেককষ্টেপ্রতিটিসড়কেকাজকরেচলাচলউপযোগীকরেছিলাম। কিন্তু বন্যারঢলে সব ক্ষত বিক্ষত করে দিয়েছে। তিনিবলেনআমারইউনিয়নের ১০/১২ টি রাস্তার ৪০/৪৫ টি স্থানে ভেঙ্গে চলাচলঅনুপযোগীহয়েপড়েছে। একটিসড়কে গত এক সপ্তাহধরেযানচলাচলবন্ধরয়েছে।

রাউজানউপজেলাপ্রকৌশলীআনোয়ার হোসেনবলেন, ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক গুলোএলজিইডিরনির্বাহীপ্রকৌশলীশাহআলমগীরসহআমিপরিদর্শনকরেছি। সড়কগুলো মেরামতকরারজন্য প্রস্তাবনা তৈরীকরাহচ্ছে। তবে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত ইউনিয়নপরিষদেরসামনেরসড়ক ও পুর্ব উরকিরচর সওদাগরপাড়াস ড়কসংস্কারের জন্য তাৎক্ষনাথ ২ লাখ টাকার একটা অনুদান প্রদানের ব্যবস্থা করেছি।