লক্ষীপুরে স্কুল কর্তৃপক্ষকে জড়িয়ে মামলা,প্রতিবাদে মানববন্ধন

লক্ষীপুর প্রতিনিধি:  লক্ষীপুরের মান্দারীতে সড়ক দূর্ঘটনায় মান্দারী প্রি-ক্যাডেট জুনিয়র স্কুলের ৫ম শ্রেনীর ছাত্র ইয়াছিন আরাফাত তামিম আহত হয়। এ ঘটনাকে হত্যার চেষ্টার অভিযোগ তুলে স্কুল কর্তৃপক্ষ ও বাজারের ব্যবসায়ীদের জড়িয়ে মামলা দায়ের করে ওই আহত ছাত্রের বাবা আওয়ামীলীগ নেতা সামছুদ্দিন সাজু।

এ ঘটনার প্রতিবাদ ও মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে শনিবার সকালে স্কুলের সামনে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ১০টা থেকে সাড়ে ১১ টায় পর্যন্ত দেড় ঘন্টা ব্যাপী এ কর্মসুচি পালন করে স্কুলের শিক্ষার্থী,শিক্ষক,অভিভাবক ও বাজারের ব্যবসায়ীরা। এ সময় বক্তব্য রাখেন, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সৌরভ হোসেন রুবেল পাটওয়ারী, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম, মান্দারী বাজার বনিক সমতির সভাপতি আতিক উল্যাহ,সাধারন সম্পাদক মো. ফারুক হোসেন প্রমুখ। অনতিবিলম্ভে উক্ত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করার দাবী জানান বক্তারা। অন্যথায় আরো কঠোর কর্মসুচির হুমকি দেয় তারা।

স্কুল কর্তৃপক্ষ ও বাজারের ব্যবসায়ীরা জানান, ১৯ এপ্রিল স্কুল ছুটির পর ৫ম শ্রেনীর ছাত্র ইয়াছিন আরাফাত তামিম মান্দারী পেট্রোল পাম্পের সামনে পৌঁছলে গ্লোব ফার্মাসিইটিক্যালস লিঃ কোম্পানীর ঢাকা-মেট্রো ম-১১-৪১৩৬ গাড়ির ধাক্কায় তামিম গুরুতর আহত হয়। আহত তামিমকে উদ্ধার করে প্রথমে গ্রীন লাইফ মেডিকেল সেন্টার পরে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হওয়ায় তামিমকে ঢাকা প্রেরন করা হয়।

বর্তমানে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে সে চিকিৎসার্ধীন রয়েছে। এ ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার জন্য তামিমের বাবা বাদী হয়ে ৩ জুলাই লক্ষীপুর আদালতে একটি হত্যার চেষ্টার মামলা দায়ের করেন। মামলায় আসামী করা হয়। ব্যবসায়ী কাজম উদ্দিন, লক্ষীপুর সরকারী কলেজের শিক্ষক আবদুল ওয়াদুদ,কফিল উদ্দিন ডিগ্রি কলেজের শিক্ষক শহীদুল ইসলাম,জেলা পরিষদের সদস্য মো. বেলায়েত হোসেন, কৃষি কর্মকর্তা নুরুল আমিন ও মোস্তফা মোল্লাসহ ৬জনকে আসামী করা হয়।