ময়মনসিংহ শহরের সড়কগুলো ভাঙ্গাচোরা

মো. নজরুল ইসলাম, ময়মনসিংহ: দেশের অষ্টম বিভাগীয় সদরদপ্তর ময়মনসিংহ শহরের ভিতরে সড়ক ও জনপথ বিভাগের (সওজ) প্রায় ২০ কিলোমিটার সড়কের অধিকাংশ এলাকা এখন বেহাল দশা। ভাঙাচোরা এসব সড়কে নিয়মিত চলাচলকারী যাত্রী ও পথচারীদের অসহনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এ অবস্থায় ‘এ রাস্তাটি সড়ক ও জনপথ বিভাগের’ এই লেখা সাইনবোর্ড বিভিন্ন বেহাল সড়কের মোড়ে মোড়ে ঝুঁলিয়ে সড়কের দায় অস্বীকার করছে ময়মনসিংহ পৌরসভা।

নষ্ট সড়ক নিয়ে শহরবাসীর মাঝে ক্ষোভের অন্ত নেই। বিভাগীয় শহরের ভিতরের সড়কগুলো সংস্কারে প্রয়োজনীয় বরাদ্দ নেই। ব গত অর্ধবছরে পিউরেডিক মেইনটেনেন্স প্রোগ্রাম ( পিএমপি ) মাইনর ও পিএমপি খাতে প্রয়োজনের তুলনায় বরাদ্দ পাওয়া যায়নি বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

ময়মনসিংহ পৌরসভার মেয়র মো. ইকরামুল হক টিটু বলেন, ময়মনসিংহ শহরের বেহাল সড়কের প্রায় ৯০ ভাগ সওজের আওতাধীন। খারাপ এসব সড়ক সংস্কারের জন্য একাধিকবার তাদের লিখিতভাবে অনুরোধ জানানো হয়েছে। এর পরও কোনো কাজ হয়নি। খারাপ রাস্তার কারণে শহরবাসী ময়মনসিংহ পৌরসভাকে এ অপবাদ দিচ্ছে। এ কারণে বাধ্য হয়েই খারাপ সড়কগুলোর মোড়ে মোড়ে এ সাইনবোর্ড দেয়া হয়েছে। প্রায় ছয়লাখ জনসংখ্যা অধ্যুষিত প্রথম শ্রেণির ময়মনসিংহ পৌরসভায় পাকা সড়ক রয়েছে মোট ১৭০কিলোমিটার। এর মধ্যে ২৪ কিলোমিটার সড়ক ময়মনসিংহ সড়ক বিভাগের অধীন। চরপাড়া মোড় থেকে পাটগুদাম সড়কের পাদ্রি মিশন সংলগ্ন প্রায় ৩০০ মিটার, নতুনবাজার ট্রাফিক মোড় থেকে গাঙ্গিনারপাড় মোড় হয়ে পাটগুদাম ব্রিজ মোড় পর্যন্ত সড়কের করুণ দশা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, ময়মনসিংহ পৌরসভার অধীন সড়কগুলো ভালো হলেও সওজের সড়কগুলো ভাঙাচোরা থাকায় এ পথে চলাচলে যাত্রী ও পথচারীদের অন্তহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। বছরের পর বছর বেহাল অবস্থায় রয়েছে শহরের চরপাড়া মোড় থেকে বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতুসংলগ্ন পাট গুদাম ট্রাফিক মোড় সড়কের পাদ্রি মিশন এলাকার ৩০০মিটার এলাকায় অনেক আগেই উঠে গেছে ইট-সুরকি। ফলে এ সড়কে ছোট-বড় গর্ত দিয়ে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আসা রোগীদের প্রতিনিয়ত নাকাল হতে হয়। বিশেষ করে এ সড়কের বিভিন্ন স্থানে উঁচু-নিচু কিংবা ছোট-বড় গর্তে যাত্রীদের দফারফা অবস্থা। এ পথে চলাচলকারী নেত্রকোনা, কিশোরগঞ্জ ও শেরপুরের যাত্রীদের অন্তহীন ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।

ময়মনসিংহ ট্রাফিক বিভাগের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর সৈয়দ মাহবুবুর রহমান জানান, ময়মনসিংহ শহরের চরপাড়া মোড় থেকে পাদ্রী মিশন হয়ে পাটগুদাম ব্রিজ মোড় পর্যন্ত আধা কিলোমিটার জুড়ে সৃষ্টি হয়েছে ছোট বড় শত শত খানা খন্দের। পুরো সড়ক জুড়ে ছোট বড় গর্তে বৃষ্টির পানি জমে থাকায় প্রায়ই দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে রিক্সা ও অটোরিক্সাসহ হালকা যানবাহন। ছোট বড় গর্ত দিয়ে ভারি যানবাহন চলতে গিয়ে গর্তে পড়ে প্রায়ই বিকল হচ্ছে।

এ বিষয়ে ময়মনসিংহ সড়ক ও জনপথ বিভাগের (সওজ) নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মাসুদ খান বলেন, শহরের বেশির ভাগ রাস্তা ঠিক আছে। বৃষ্টিতে কিছু কিছু অংশ খারাপ হয়েছে। খারাপ রাস্তাগুলো দ্রæত সময়ের মধ্যে সংস্কার করা হবে। ইতিমধ্যে প্রায় সাড়ে ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে পাটগুদাম মোড়ের ইন্টারসেকশন প্রশস্তশরণ কাজ সোমবার থেকে শুরু হবে।

এয়াড়া ব্রীজের ওপারে প্রায় ১১ কোটি ব্যয়ে সংস্কার কাজ শুরু হচ্ছে। ময়লা এলাকা থেকে চায়না মোড়, টোলপ্লাজা, শম্ভুগঞ্জ মোড় ও নেত্রকোণা সড়কের মোড়সহ প্রায় ১ এক কিলোমিটার এলাকা আরসিসি ঢালাই করা হরে এবং সড়ক প্রশস্ত করা হবে। এয়াড়াও শহরের জিরো পয়েন্ট থেকে রহমতুর পর্যন্ত সড়কটি সংস্কার করা হয়েছে। নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মাসুদ খান বলেন, এ ছাড়াও শহরের ভিতরের সড়কগুলো সংস্কারে প্রয়োজনীয় উদ্যেগ নেয়া হচ্ছে। প্রয়োজনীয় বরাদ্দ পাওয়া গেলেই কাজ শুরু হবে।

ময়নসিংহ জেলা নাগরিক আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার নূরুল আমিন কালাম জানান, গত অর্থ বছরে শহরের বড় বড় সড়কগুলো সংস্কার করা হয়নি। ফলে সওজের অধিকাংশ সড়কের বিটুমিন উঠে গেছে। এছাড়াও নিন্মমানের পাথর ও বিটুমিন ব্যবহারের ফলে ময়মনসিংহের সওজের সড়কগুলো সংস্কার ও পুনঃনির্মাণের পরপরই ভেঙে যাচ্ছে। সড়কের বেহাল দশা ঢাকতে সড়ক বিভাগ মেরামতের নামে ছোট বড় গর্তের ওপর ইট ফেলে এই দুর্ভোগ আরও বাড়িয়ে তুলেছে। অনেক জায়গায় ফেলা হয়েছে আধলা ইটের টুকরা। এসব ইটের টুকরো দুর্ভোগ আরো বেড়েছে।