কুমিল্লায় সড়ক দুর্ঘটনায় নারী শিশুসহ নিহত-৪

বারী উদ্দিন আহমেদ বাবর, কুমিল্লা প্রতিনিধি: কুমিল্লায় পৃথক পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নারী ও শিশুসহ ৪ জন নিহত ও ২২ জন আহত হয়েছে। আজ (৭ জুলাই) শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জেলার সদর দক্ষিণ থানার পাশে লহিপুরা এলাকায় ও জেলার দাউদকান্দির শুক্রবার সকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের গৌরীপুরে এবং গৌরীপুর-হোমনা সড়কের আঙ্গাউড়া মুক্তি মেডিকেলের সামনে এসব দূর্ঘটনা ঘটে। এতে ২ শিশুসহ ৪ জন নিহত ও ২০ জন আহত হয়েছেন।

জানাগেছে, আজ (৭ জুলাই) শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সদর দক্ষিণ উপজেলার ধনাইতরী গ্রামের ইকরাম হোসেন (৪৮) তার স্ত্রী ও সন্তানকে নিয়ে অটোরিকশায় জেলার বরুড়া উপজেলায় আত্মীয়ের বাড়িতে যাচ্ছিলেন। লহিপুরা এলাকায় পৌঁছালে ঢাকাগামী একটি লরি তাদের বহনকারী অটোরিকশাটিকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলে ইকরাম হোসেনের স্ত্রী মাহমুদা আক্তার (২৫), তার ছেলে আরশাদ (১৮ মাস) নিহত হয়। অটোরিকশাচালক মনির হোসেনকে উদ্ধার করে ঢাকা নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় আরো দুইজন আহত হয়েছেন।
সদর দক্ষিণ থানার ওসি মো. নজরুল ইসলাম জানান, অটোরিকশাচালক কোনো প্রকার সিগন্যাল ছাড়াই সড়কে উঠলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনা কবলিত গাড়ি দুটি উদ্ধার করে থানায় নেওয়া হয়েছে। আহতদের কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে, জেলার দাউদকান্দি হাইওয়ে ও গৌরীপুর ফাঁড়ি পুলিশ জানান, আজ (৭ জুলাই) সকালে ঢাকা-হোমনা সড়কের আঙ্গাউড়া মুক্তি মেডিকেলের সামনে একটি কাভার্ডভ্যান দ্রæত বেগে যাওয়ার সময় এক শিশুকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলে সে মারা যায়। নিহত শিশুটির নাম তায়েবা আক্তার (৬)। সে আঙ্গাউড়া গ্রামের প্রবাসী আবুল হাসেমের মেয়ে। পুলিশ নিহত শিশুটির লাশ তার পরিবারের নিকট হস্তান্তর করেছেন।

অপরদিকে, একই উপজেলার ঢাকা থেকে মতলবগামী মতলব এক্সপ্রেসের একটি যাত্রীবাহী বাস আজ (৭ জুলাই) দুপুরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের উপজেলার গৌরীপুর বাসন্ট্যান্ডের কাছে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে পাশের খাদে পড়ে যায়। এতে ১৮ জন যাত্রী আহত হয়। তাদেরকে দাউদকান্দি (গৌরীপুর) উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।