ডিআরইউ’র প্রতিবাদ সমাবেশ শুক্রবার

নিউজ ডেস্ক: তথ্যপ্রযুক্তি আইনের (আইসিটি অ্যাক্ট) ৫৭ ধারা বাতিলের দাবিতে ‘প্রতিবাদ সমাবেশ’ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ)। শুক্রবার সকাল ১০টায় ডিআরইউ চত্বরে এই প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।

বুধবার ডিআরইউ’র দফতর সম্পাদক নয়ন মুরাদ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। অপরদিকে ডিআরইউ সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশা ও সাধারণ সম্পাদক মোরসালিন নোমানী বুধবার এক বিবৃতিতে এই কর্মসূচি সফল করার জন্য সংগঠনের সব সদস্য এবং সব সাংবাদিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ডিআরইউ দীর্ঘদিন ধরে বিতর্কিত ৫৭ ধারাটি বাতিলের দাবিতে সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু ডিআরইউ গভীর উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার সঙ্গে লক্ষ্য করছে যে, এই ধারার অপপ্রয়োগের ফলে ডিআরইউ’র অনেক সদস্যসহ সারা দেশে অসংখ্য সাংবাদিককে গ্রেফতার ও কারাবরণ করতে হয়েছে।

ডিআরইউ আরও লক্ষ্য করছে যে, এই আইনে দায়ের করা মামলায় পুলিশ বিবাদীকে যেকোনো অবস্থান থেকে গ্রেফতার করতে পারে এবং এটি একটি অজামিনযোগ্য ধারা। সরকারের পক্ষ থেকে ডিআরইউসহ গোটা সাংবাদিক সমাজকে বিভিন্ন সময় আশ্বস্ত করা হলেও বিতর্কিত এই আইনটি বাতিলের ব্যাপারে এখনো কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। বরং এই আইনের অপপ্রয়োগ বেড়েই চলছে। যা ডিআরইউসহ গোটা সাংবাদিক সমাজের জন্য উদ্বেগ ও ভীতির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ডিআরইউ মনে করে, কোনো সাংবাদিকই আইনের ঊর্ধ্বে নয়। এক্ষেত্রে কোনো সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা করতে হলে সেজন্য দেশে প্রচলিত আইন রয়েছে। কিন্তু তা না করে সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক আইসিটি অ্যাক্টের ৫৭ ধারায় সাংবাদিকদের রিরুদ্ধে যেসব মামলা দায়ের করা হচ্ছে, তা একটি গণতান্ত্রিক সরকারের জন্য যেমন বিব্রতকর; তেমনি সাংবাদিক সমাজের জন্যও এটি অত্যন্ত অবমাননাকর।

এক্ষেত্রে ডিআরইউ মনে করে যে, সরকারের আন্তরিকতা ও সদিচ্ছা থাকা সত্ত্বেও আইসিটি অ্যাক্টের ৫৭ ধারার মতো নিবর্তনমূলক একটি আইন বলবত রেখে দেশে মুক্ত স্বাধীন গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়।

অতিসম্প্রতি ডিআরইউ’র আরও একজন স্থায়ী সদস্য ও যমুনা টিভির সিনিয়র রিপোর্টার নাজমুল হোসেনসহ চারজনের বিরুদ্ধে দিনাজপুরে আইসিটি অ্যাক্টের ৫৭ ধারায় মামলা করা হয়। যার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে ডিআরইউ।

নাজমুল হোসেনসহ এখন পর্যন্ত যেসব সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ৫৭ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে তাদের সব মামলা অনতিবিলম্বে প্রত্যাহারের জন্য সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন নেতৃবৃন্দ।