সমঝোতার মাধ্যমেই ‘বরফ’ গলবে: ফখরুল

নিউজ ডেস্ক:  আগামী নির্বাচন নিয়ে যে রাজনৈতিক সংকট সৃষ্টি হয়েছে, সমঝোতার মাধ্যমেই তার ‘বরফ’ গলবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বুধবার দুপুরে নয়া পল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

গত ২৩ জুন অস্ট্রেলিয়ার ক্ষমতাসীন লিবারেল পার্টির আমন্ত্রণে দলটির ৫৯তম ফেডারেল কনভেনশনে যোগদান শেষে ঢাকায় ফেরার পর বুধবারই প্রথম সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হন বিএনপি মহাসচিব। সোমবার রাতে তিনি ঢাকায় ফেরেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘সব কিছুরই শেষের দিকে ভালো কিছু আসে। বরফ একদিনে নাও হতে পারে, আবার নাও গলতে পারে। তবে আমরা আশাবাদী যে বরফ গলতে হবে। শেষ পর্যন্ত শুভ বুদ্ধির উদয় হবে। আলোচনার মধ্য দিয়ে একটা সমঝোতার রাস্তা বের হবে।’

তবে এই সংকট থেকে উত্তরণ না ঘটলে এর সকল দায়-দায়িত্ব দায় ক্ষমতাসীনদের ওপর বর্তাবে বলে মনে করেন তিনি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, বিএনপিতো বিরোধী দল হলেও সংসদে নেই। বিএনপির পক্ষ থেকে সরকারকে বারবার সংলাপের কথা বলা হয়েছে। আলাপ-আলোচনার পথ ঠিক করতে হবে সরকারকে। এদেশের ইতিহাসে রাজনৈতিক সংকট নিয়ে বহুবার আলোচনা হয়েছে। দেশ স্বাধীন হওয়ার আগে আইয়ুব খান, ইয়াহিয়া খানের সঙ্গে নেতারা গোল টেবিল বৈঠক করেছেন।

তিনি বলেন, ‘এখানে গোপন কিছু নেই, আমরা নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী করার ব্যাপারে প্রস্তাব দিয়েছি। নির্বাচনের সময়ে সেনা বাহিনীর ভূমিকা কী হওয়া উচিৎ তা বলা হয়েছে। নির্বাচনকালীন সময়ে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন হওয়া এবং নির্বাচনে যাতে সকল রাজনৈতিক দল অংশ নিতে পারে সে জন্য নিরপেক্ষ সহায়ক সরকারের কথা বলে দিয়েছি। খুব শিগগিরিই বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া সহায়ক সরকারের প্রস্তাব তুলে ধরবেন।

ফরহাদ মজহারের অপহরণ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কেউ কোনদিন চিন্তাও করতে পারেনি যে কবি ফরহাদ মজহারের মতো মানুষকে গুম করার চেষ্টা করা হবে, অপহরণ করে তুলে নিয়ে যাওয়া হবে। ফরহাদ মজহারের অপহরণের বিষয়ে পুলিশের দেয়া ভাষ্যকে ‘হাস্যকর’ বলেও মন্তব্য করেন তিনি।