মালয়েশিয়ায় অভিযানে ৭৫০ বাংলাদেশি আটক

নিউজ ডেস্ক: মালয়েশিয়ায় অবৈধ অভিবাসীদের বিরুদ্ধে অভিযানে গ্রেফতারের সংখ্যা দেড় হাজার ছাড়িয়ে গেছে। আটক বিদেশি কর্মীদের মধ্যে বাংলাদেশির সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। মালয়েশিয়ার নিউ স্ট্রেইটস টাইমস অনলাইনের এ খবরে বলা হয়েছে, এখন পর্যন্ত আটক বাংলাদেশির সংখ্যা ৭৫২ জন। বাকিদের মধ্যে ১৯৫ জন ইন্দোনেশিয়া, ১১৭ জন মিয়ানমার, ৫০ জন ফিলিপাইন ও ৪৫ জন থাইল্যান্ডের নাগরিক রয়েছেন।

এছাড়া ২৮ জন নিয়োগকর্তাকে আটক করা হয়েছে। গতকাল সোমবার অভিবাসন দফতরের মহাপরিচালক মুস্তাফার আলী এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছেন। আটক হওয়া বিদেশিদের মধ্যে ১ হাজার ৩১৪ জন পুরুষ, ১৯২ জন নারী ও তিন জন শিশু রয়েছে।

এদিকে, মালয়েশিয়ায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে আটক বাংলাদেশের শ্রমিকদের বিষয়ে সৃষ্ট সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে পদক্ষেপ নিতে সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদিশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব জাবেদ আহমদ গণমাধ্যমকে জানান, প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি বর্তমানে ব্যক্তিগত সফরে মালয়েশিয়ায় অবস্থান করছেন। তিনি সেখানে বাংলাদেশ মিশনের কর্মকর্তাদের সাথে এ বিষয়ে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছেন।

মালয়েশিয়ার সরকার ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে এ বিষয়ে অন্যান্য দেশের পরবর্তী পদক্ষেপের ওপর বিশেষ নজর রাখছেন বাংলাদেশ মিশনের কর্মকর্তারা। তিনি আরো বলেন, বর্তমানে মালয়েশিয়ায় আট লাখ বাংলাদেশী শ্রমিক বৈধভাবে কাজ করছে। মালয়েশিয়া সরকার সম্প্রতি বাংলাদেশের ২ লাখ ৫০ হাজার অবৈধ শ্রমিককে রিহায়ারিং কোটায় বৈধতা দিয়েছে। মালয়েশিয়া সরকার জি টু জি মাধ্যমে ২২ হাজার শ্রমিক নেয়ার চাহিদাপত্র দিয়েছে। এর মধ্যে প্রায় ৮ হাজার শ্রমিক মালয়েশিয়ায় গেছে।

প্রসঙ্গত, মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত বৈধ কাগজপত্র-বিহীন শ্রমিকদের বৈধভাবে পুনঃনিয়োগের প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে গত চার মাস ধরে এনফোর্সমেন্ট কার্ডের (ই-কার্ড) আবেদন গ্রহণ করা হয়, যার সময় শেষ হয়েছে ৩০ জুন। এই ই-কার্ডের মেয়াদ আগামী বছরের ১৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। যাদের কাছে বৈধ পাসপোর্ট বা কাজের অনুমতি নেই, ওই ই-কার্ড দিয়ে তারা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত মালয়েশিয়ায় থেকে কাজ করতে পারবেন।

ওই সময়ের মধ্যে তাদেরকে নিজ নিজ দূতাবাস থেকে পাসপোর্ট ও ট্র্যাভেল ডকুমেন্ট সংগ্রহ করে নতুন করে ওয়ার্ক পারমিট নিতে হবে। তা না হলে নির্ধারিত সময়ের পর তাদের দেশে ফেরত পাঠানো হবে বলে আগেই জানিয়ে দিয়েছে মালয়েশিয়ার সরকার।