লক্ষ্মীপুরে শত কোটি টাকার নারিকেলের ব্যবসা

নিউজ ডেস্ক: মেঘনা নদীর উপকূলীয় জেলা লক্ষ্মীপুরে এবারও নারিকেলের বাম্পার ফলন হয়েছে। নারিকেল কেনা-বেচায় এখন দারুণ সরগরম লক্ষ্মীপুরের বিভিন্ন হাট-বাজার। চলতি মৌসুমে অতীতের সকল রেকর্ড ছাড়িয়ে শত কোটি টাকার বেশী নারকেল বিক্রি হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় কৃষি অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা।

তবে স্থানীয়ভাবে নারকেল ভিত্তিক কল-কারখানা গড়ে না উঠায় ও অসাধু ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের কারণে ন্যায্যমূল্য না পাওয়ার অভিযোগ করেছেন চাষিরা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, জেলায় দুই হাজার ৭৩৫ হেক্টর জমিতে নারিকেল বাগান রয়েছে। এর মধ্যে সদরে ১ হাজার ৩৫০ হেক্টর, রামগঞ্জে ৫শ’ ১০ হেক্টর, কমলনগর ৩৫০হেক্টর, রায়পুর ৩৬৫ হেক্টর ও রামগতি উপজেলায় ১৬০হেক্টর জমিতে নারিকেলের বাগান রয়েছে। এ মৌসুমে সাড়ে ৫ কোটি কোটি পিছেরও বেশী নারিকেল বিক্রি হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। বর্তমানে যার বাজার দর শত কোটির টাকার বেশী। এছাড়াও দশ কোটি টাকার নারিকেলের ছোবড়া বিক্রি হবে বলে আশা করে হচ্ছে।

জেলায় নারিকেলের প্রধান মোকামগুলো হলো- সদর উপজেলার দালাল বাজার, চন্দ্রগঞ্জ, মান্দারী, রায়পুর উপজেলার হায়দরগঞ্জ, রামগঞ্জ শহর, কমলনগর হাজির হাট, রামগতির আলেকজান্ডার। এসব বাজারে এখন কেনা-বেচায় ব্যস্ত সময় পার করছে নারিকেলের পাইকারসহ মৌসুমি ব্যবসায়ীরা। এখানকার নারকেল বাগেরহাট, ভৈরব, খাদেমগঞ্জ, ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা, বান্দরবান, রাঙ্গামাটি, ফরিদপুর, ময়মনসিংহ বিভিন্ন জেলায় পাঠানো হয়।

বাগানের মালিকরা জানান, নারিকেলের চারা গাছ রোপণের সময় প্রয়োজনীয় সার প্রয়োগ ও পরিচর্যা করতে হয়। গাছ লাগানোর পাঁচ-ছয় বছরের মধ্যে ফল পাওয়া যায়। এছাড়া প্রতি বর্ষা মৌসুমে গাছের মাথা পরিষ্কার করতে হয়। প্রতিটি গাছ ৫০-৬০ বছর পর্যন্ত ফল দিয়ে থাকে। প্রতি গাছে বছরে ২০০ থেকে ৫০০টি পর্যন্ত নারিকেল পাওয়া যায়।

সদর উপজেলার চন্দ্রগঞ্জের আনোয়ার হোসেন নামে এক চাষি জানান, গত বছরের তুলনায় এবার দাম কিছুটা কম। এজন্য ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট ও স্থানীয়ভাবে শিল্পকারখানা গড়ে না উঠাকে দায়ী করেন তিনি।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. গোলাম মোস্তফা জানান, এবছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় নারিকেলের বাম্পার ফলন হয়েছে। তবে নারিকেল সমৃদ্ধ এ জেলায় নারিকেল ভিত্তিক শিল্প কারখানা গড়ে উঠলে চাষিরা ন্যায্য দাম পাওয়ার পাশাপাশি বিপুল মানুষের কর্মস্থান হবে। সেজন্য এ জেলায় নারিকেল ভিত্তিক কারখানা গড়ে তোলা প্রয়োজন।