পুরনো নিয়মে ভ্যাট আদায়ের সিদ্ধান্তকে স্বাগত : ঢাকা চেম্বার

নিউজ ডেস্ক: জাতীয় সংসদে পাস হওয়া অর্থবিলে বিদ্যমান মূসক আইনে আরো দুই বছর ভ্যাট আদায়ের সিদ্ধান্ত এবং নতুন ভ্যাট আইনের কার্যকারিতা এ সময়ের জন্য স্থগিত করা ও ব্যাংক আমানতের ওপর আবগারি শুল্ক হার কমানোর সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই)।

বৃহস্পতিবার সংগঠনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে অর্থবিল-২০১৭ কে অভিনন্দন জানিয়ে বলা হয়, ডিসিসিআই মনে করে-জাতীয় সংসদে পাশ হওয়া অর্থবিলে প্রস্তাবিত ১৫ শতাংশ ভ্যাটের পরিবর্তে পূর্বের ভ্যাট আইন বলবত রাখায় দেশে ব্যবসা-বাণিজ্য সম্প্রসারণ ও বেসরকারি বিনিয়োগ উৎসাহিত হবে এবং দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি স্থিতিশীল থাকবে।

বর্তমানে ২০টি সেবা খাত স্তরভিত্তিক মূসক সুবিধার আওতায় রয়েছে এবং ১৭৯টি পণ্য ট্যারিফ ভ্যালু সুবিধার আওতায় রয়েছে। বিদ্যমান ভ্যাট আইন বহাল রাখার ফলে নির্মাণ সামগ্রী, বিষ্কুট, জুস, মশলা, পরিবহন, অ্যাপার্টমেন্ট, আসবাবপত্র, তথ্য-প্রযুক্তি সেবা,বিদ্যুৎ এবং রেস্তোরা প্রভৃতি খাতের দাম বাড়বে না। পাশাপাশি ব্যাংক আমানতে আবগারী শুল্ক হ্রাস করায় দেশের ক্ষুদ্র ও মাঝারী শিল্প, নিম্ন-মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত আয়ের জনগন সঞ্চয়ে উদ্বুদ্ধ হবে এবং এসএমই খাত মূলধন সংগঠনে আস্থা ফিরে পাবে, যা কিনা ৭ দশমিক হারে জিডিপি অর্জনে সহায়তা করবে।

সংগঠনটি ব্যাংকে জমাকৃত আমানতের পরিমান ১ লাখ হতে ৫ লাখ টাকার উপর আবগারী শুল্ক ৮০০ টাকার পরিবর্তে ১৫০ টাকা এবং ৫ লাখ হতে ১০ লাখ টাকার উপর আবগারী শুল্ক ৫০০ টাকা নির্ধারন করায় সরকারকে ধন্যবাদ জানায়।

এছাড়াও তৈরি পোশাক খাতে করপোরেট করহার ১৫ শতাংশের স্থলে ১২ শতাংশ নির্ধারণ এবং পরিবেশবান্ধব পোষাক কারখানার ক্ষেত্রে কর্পোরেট করের হার ১৪ শতাংশের স্থলে ১০ শতাংশ করায় বিনিয়োগ উৎসাহিত হবে এবং ৫০ বিলিয়ন রফতানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সহায়ক হবে বলে মনে করছে সংগঠনটি। তবে পাশকৃত অর্থবিলে করর্পোরেট করের হার অপরিবর্তিত রাখার সমালোচনা করে ডিসিসিআই।

সংগঠনটি বলছে, দেশে সংযোজিত মটর সাইকেলের ওপর থেকে সম্পুরক শুল্ক প্রত্যাহার করা অত্যন্ত ইতিবাচক সিদ্ধান্ত। এতে করে এই খাতের স্থানীয় উদ্যোক্তারা আরোও উৎসাহিত হবেন এবং বিনিয়োগ বৃদ্ধি পাবে। দেশে সংযোজিত রেফ্রিজারেটর শিল্পের ওপর হতে সম্পূরক শুল্ক হ্রাস করায় আমদানি বিকল্প এ শিল্পটিতে বিনিয়োগ বৃদ্ধি পাবে।

প্রস্তাবিত বাজেটে সোলার প্যানেল আমদানির ক্ষেত্রে ১০ শতাংশ শুল্ক আরোপ করার প্রস্তাব প্রত্যাহার করা হয়েছে, যা পরিবেশবান্ধব জ্বালানী ব্যবহারের প্রবনতাকে উৎসাহিত করবে পাশাপাশি নবায়নযোগ্য জ্বালানি হতে ১০ শতাংশ বিদ্যুৎ উৎপাদনের সরকারের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সহায়তা করবে।

ঢাকা চেম্বার মনে করে, উন্নয়ন সহায়ক সংশোধনী আনায়নের ফলে পাশকৃত অর্থবিলটি দেশের প্রবৃদ্ধি অর্জনের সাথে সাথে বেসরকারি বিনিয়োগকে বেগবান করবে,যা কিনা ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হওয়ার লক্ষ্য অর্জনে সহায়ক হবে।