গো-রক্ষা: মোদীর হুঁশিয়ারির পরও রামগড়ে পিটিয়ে হত্যা

অনলাইন ডেস্ক: এস. এস. ‘গো-ভক্তির নামে মানুষ খুন মেনে নেওয়া যায় না’ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর এই বক্তব্যের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ফের ভারতের এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে রামগড়ের বাজারটাঁড়ের কাছে এই ঘটনা ঘটে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে এ খবর জানা গেছে। স্থানীয় পুলিশ জানাচ্ছে, নিহত আসগর আলি ওরফে আলিমুদ্দিন (৫০) ঝাড়খণ্ডের মাংস ব্যবসায়ী। ঘটনার দিন রামগড়ের চিতরপুর বাজার থেকে মাংস কিনে নয়াসরাই ব্লকের মনুয়া গ্রামে ফিরছিলেন। শহরের মধ্যেই বাজারটাঁড় নামে একটি জায়গায় গাড়িটিকে দাঁড় করায় কয়েক জন যুবক। গাড়িতে গো-মাংস নিয়ে যাওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলে তারা আলিমুদ্দিনকে মারতে থাকে। 

এক প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, ‘গাড়িটাকে ঘিরে ভিড় জমতে দেখে দাঁড়িয়ে যাই। উত্তেজিত কিছু লোক বেধড়ক কিল-ঘুঁষি মারছিল মানুষটাকে।’ স্থানীয় দোকানদাররা বলছেন, কিছু বুঝে ওঠার আগেই তারা দেখেন কয়েকটা লোক লাঠি হাতে গাড়িটি ভাঙতে শুরু করেছে। আক্রান্ত ব্যক্তি হাতজোড় করে কিছু বলার চেষ্টা করছিলেন। কর্ণপাত না করে কয়েকজন লোক গাড়ির ভিতর থেকে মাংস বের করে রাস্তায় ছুড়ে ফেলে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক দোকানদার বলেন, ‘আমরা থামাতে গেলে উত্তেজিত জনতা আমাদের দিকেই তেড়ে আসে। আমরা ভয়ে পালিয়ে আসি। পুলিশকে খবর দিই।’
 
পুলিশ আসার আগেই মারমুখী দুষ্কৃতীরা গাড়িটিতে আগুন লাগিয়ে দেয়। জ্বলন্ত গাড়ির কাছেই রাস্তায় পড়ে ছিলেন আলিমুদ্দিন। হাঁটতে পারছিলেন না। পুলিশ তাকে উদ্ধার করে প্রথমে রামগড় সদর হাসপাতাল, পরে রাঁচির রিমস হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানেই তার মৃত্যু হয়।

হাজারিবাগের ডিআইজি ভীমসেন টুটি সন্ধ্যায় জানান, ঘটনাস্থল থেকে তাঁরা কিছু ছবি ও ভিডিও ফুটেজ জোগাড় করেছেন। অপরাধীদের শনাক্ত করার চেষ্টা হচ্ছে। এর আগেও, গত মঙ্গলবার রাতে গিরিডিতে এক প্রৌঢ়কে গণধোলাই দিয়েছিল গো-রক্ষকরা। টাইমস অব ইন্ডিয়া।