পাকুন্দিয়ায় ৭ ডাকাতকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ

নজরুল ইসলাম খায়রুল, কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি: কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় সাত ডাকাতকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এসময় গ্রেফতারকৃত ডাকাতদের কাছ থেকে তিনটি ধারালো চাপাতি উদ্ধার করে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃত ডাকাতরা হলেন-উপজেলার হোসেন্দী মধ্যপাড়ার মোহাম্মদ আলীর ছেলে আরিফ (২১) ও একই এলাকার মাঈন উদ্দিনের ছেলে নাঈম (১৯), হোসেন্দী চরপাড়ার আবুল হাশিমের ছেলে দেলোয়ার (২৬) এবং মোল্লাদী গ্রামের আবদুল মিয়ার ছেলে সাগর (১৯), ও একই এলাকার মিলন মিয়ার ছেলে আল আমিন (২০), মুরশিদ মিয়ার ছেলে সাজু (২০) ও আবুল কালামের ছেলে রাজিব (২০)।

শনিবার দিবাগত রাত থেকে সকাল পর্যন্ত উপজেলার হোসেন্দী, মোল্লাাদী ও আলমদী এলাকায় অিিভযান চালিয়ে এদের গ্রেফতার করে আহুতিয়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এস.আই) মতিউর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশের দল।

আহুতিয়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এস.আই) মতিউর রহমান জানান, গত ১৪ই মে দিবাগত রাতে আলমদী গ্রামের নূরুল ইসলামের বাড়িতে ডাকাতদল হানা দেয়। এ সময় ডাকাতদলের সদস্যরা নূরুল ইসলামকে চাপাতি ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে মূল্য্যবান মালামাল ও টাকা-পয়সা লুট করে পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় গত ২০ শে মে নূরুল ইসলামের স্ত্রী সুফিয়া বেগম বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা করেন। পরবর্তিতে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে ডাকাতদলের সদস্যদের চিহ্ণিত করে পুলিশ অভিযান চালায়। অভিযানের সময় ডাকাতদলের সাত সদস্য পুলিশের হাতে গ্রেফকার হয়।

গ্রেফতারকৃতদের আদালতে হাজির করলে এদের মধ্যে আরিফ ও নাঈম রোববার দুপুরে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। কিশোরগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. ইকবাল মাহমুদ এই দুইজনের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করেন। পরে আদালতের আদেশে সাতজনকেই কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কোর্ট পরিদর্শক মো. হুমায়ুন কবির আকন্দ।