সমাজের ইতিবাচক পরিবর্তন টেকসই করতে হবে: স্পিকার

নিউজ ডেস্ক: স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি এসোসিয়েশন (সিপিএ) তরুণ সমাজকে নিয়ে কাজ করছে। কমওয়েলথভুক্ত দেশসমূহের তরুণ সমাজকে সংসদীয় গণতন্ত্র সম্পর্কে অবহিত, শিক্ষিত ও সচেতন করে গড়ে তুলতে সিপিএ রোড শো কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। তিনি সমাজের ইতিবাচক পরিবর্তনে তরুণদের অংশগ্রহণকে উৎসাহিত করার প্রতি গুরুত্বারোপ করেন।

স্পিকার বলেন, সমাজের ইতিবাচক পরিবর্তনকে টেকসই করতে হবে। উন্নয়ন টেকসই না হলে কাক্সিক্ষত উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে। তিনি বলেন, সীমিত সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করার পাশাপাশি তরুণ সমাজের জন্য নিরাপদ আগামী রেখে যেতে হবে।

তিনি আজ ঢাকায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বাংলাদেশ ইয়ুথ লিডারশিপ সেন্টার (বিওয়াইএলসি) আয়োজিত বিওয়াইএলসি এলামনাই এওয়ার্ডস প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন।

নেতৃত্ব শিক্ষাকে কাজে লাগিয়ে নিজ নিজ কমিউনিটি ও পেশাগত অবদান রাখায় উদীয়মান ১০ জন তরুণ তরুণীকে বিওয়াইএলসি এলামনাই এওয়ার্ডস প্রদান করা হয়।

স্পিকার বলেন, বিওয়াইএলসি এর এ পদক্ষেপ তরুণদেরকে নেতৃত্বে অগ্রসর হতে সহায়তা করবে। তরুণদেরকে গণতন্ত্র ও সংসদীয় গণতন্ত্র সম্পর্কে অবহিত করতে বিওয়াইএলসি গ্রাজুয়েট নেটওয়ার্ক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। তরুণ সমাজকে একত্রিত করে সর্বোচ্চ সমন্বয় সাধন করে উজ্জ্বল আলোকিত বাংলাদেশ গড়ার ক্ষেত্রে বিওয়াইএলসির প্রতিটি সদস্যের প্রতি তিনি উদাত্ত আহŸান জানান।

স্পিকার বলেন, বাংলাদেশের বর্তমান জনসমষ্টির অধিকাংশ তরুণ-এ তরুণ প্রজন্মের মাঝেই ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব লুকিয়ে আছে। লক্ষ্য বহুদূর তবু এ যাত্রা হলো শুরু। এ যাত্রাপথই তরুণদেরকে পৌঁছে দেবে অভীষ্ট লক্ষ্যে।

বিওয়াইএলসি এলামনাই এওয়ার্ডস প্রদান অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে সংগঠনের সভাপতি ইজাজ আহমেদ, ব্রিটিশ হাইকমিশনার এলিসন বেøক, মাইক্রোসফট এর সোনিয়া বশির, গ্রাজুয়েট নেটওয়ার্কের সভাপতি জাহেদুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন ।