শিক্ষা খাতে পর্যাাপ্ত বাজেট বরাদ্দ ছাড়া শিক্ষার সংকট সমাধান অসম্ভব

নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি (বাশিস) ও বাংলাদেশ কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির (বাকবিশিস)-এর যৌথ উদ্যেগে আজ ১২ জুন ২০১৭ সোমবার সকাল ১১.০০টায় ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটি রাউনটেবিল হলে ‘সংকটের আবর্তে শিক্ষা ও সংস্কৃতি: গতি প্রবণতা ও উত্তরণের পথ’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন করা হয়েছে। উক্ত গোলটেবিল বৈঠকে প্রধান অথিতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ড. আব্দুর রাজ্জাক এমপি, সভাপতি, অর্থমন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি ও প্রেসিডিয়াম সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।

গোল টেবিল বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন মুহাম্মদ আবু বকর সিদ্দিক, সভাপতি, বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি, কেন্দ্রীয় কমিটি।

প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে বলেন, শিক্ষা খাতে পর্যাাপ্ত বাজেট বরাদ্দ ছাড়া শিক্ষার সংকট সমাধান সম্ভব নয়। দেশের শিক্ষা ক্ষেত্রে বিরাজমান সংকট সমাধানে জাতীয় শিক্ষা নীতি ২০১০-এর আলোকে বাজেটে পর্যাপ্ত বরাদ্দ অতীব জরুরী। শিক্ষার সংকট সমাধানে আধুনিক , অসাম্প্রদায়িক ও বিজ্ঞানমনস্ক নতুন প্রজন্ম গড়ে তোলার জন্য শিক্ষক, অভিভাবক, শিক্ষার্থী ও শিক্ষার সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তি-বর্গের যথাযথ ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

গোল টেবিল বৈঠকে আলোচকগণ বলেন, জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০-এর আলোকে শিক্ষা জাতীয়করণ, পাঠ্যপুস্তকে শিক্ষার সাম্প্রদায়িকীকরণ বন্ধ করা, প্রশ্নপত্র ফাঁস প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে। সুনির্দিষ্ট নীতিমালা ছাড়া বিক্ষিপ্তভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ না করে পুরো শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণের উপর জোর দেন।

আলোচকগণ বলেন, দেশের শিক্ষাব্যবস্থার সিংহভাগ বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরিচালিত হচ্ছে। কিন্তু সেসব প্রতিষ্ঠান এবং সেখানে কর্মরত শিক্ষক-কর্মচারীরা সবচেয়ে বেশি অবহেলিত। ২০১৫ সালে জাতীয় বেতন স্কেল কার্যকর করা হলেও বিগত দুই বছরে এখনো পর্যন্ত বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের বার্ষিক প্রবৃদ্ধি প্রদান করা হয়নি। বৈশাখী ভাতা ও পূর্ণাঙ্গ উৎসব ভাতা প্রদান করা হয় না। জনবল কাঠামোর নামে শিক্ষা সংকোচনের ধারা অব্যাহত রয়েছে।

অবসরপ্রাপ্ত হাজার হাজার বেসরকারী শিক্ষক-কর্মচারীদের দীর্ঘদিন পর্যন্ত অবসর সুবিধা ও কল্যাণ ট্রাস্টের প্রাপ্য অর্থের জন্য অপেক্ষা করতে হচ্ছে। অবসরপ্রাপ্ত অনেক শিক্ষক-কর্মচারী অর্থের অভাবে চিকিৎসা করাতে পারছেনা, ফলে অনেকে মৃত্যুবরণও করছেন। যা কোন অবস্থায় কাঙ্খিত নয়। অবিলম্বে অবসর সুবিধা ও কল্যাণ ট্রাস্টের জন্য পর্যাপ্ত বরাদ্দের দাবি জানান। এমপিও বিহীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এমপিও ভুক্তকরণ এবং এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এমপিও বিহীন শিক্ষক-কর্মচারীদের এমপিও প্রদানের দাবি জানান।

গোল টেবিল বৈঠকে আলোচক হিসেবে আলোচনায় অংশ নেন প্রফেসর মাহফুজা খানম ,সভাপতি বিশ্ব শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন (ঋওঝঊ), প্রফেসর ড. নূর মোহাম্মদ তালুকদার, সভাপতি বাংলাদেশ কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি, ড. এম.এম. আকাশ, অধ্যাপক, অর্থনীতি বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, সোহরাব হোসেন, যুগ্ন-সম্পাদক, দৈনিক প্রথম আলো, অধ্যাপক এম.এ বারী, সহ-সভাপতি, বাংলাদেশ কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ও রঞ্জিত কুমার সাহা, সহ-সভাপতি, বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি।