গৌরীপুরে ধর্ষণ মামলায় গ্রেফতার-১

গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি: ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার সিধলা ইউনিয়নের মানিয়ারকান্দা গ্রামের ধর্ষনের শিকার এক যুবতি (১৭) ৭মাসের অন্তঃস্বত্ত¡ার ঘটনায় গৌরীপুর থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। এ ঘটনায় মৃত ঈমান আলীর পুত্র মোঃ মুন্নাফ (৫২)কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মামলা দায়ের ও আসামী গ্রেফতারের ঘটনায় আসামী ও তার স্বজনরা শুক্রবার (৩১মার্চ/১৭) বিক্ষুব্ধ হয়ে বাদীর মা আছিয়া খাতুন (৬০) কে মারধোর করেছে। শনিবার (১ এপ্রিল/১৭) মামলার বাদি জানান, আসামী ও তার স্বজনরা লাঠিসোটা নিয়ে পথরোধ করে রাখছে, সে বাড়ি থেকে বের হতেও পারছে না।

মামলা ও ভিকটিমের বাবা জানান, তার কিশোরী কন্যাকে একই গ্রামের মোঃ বাচ্চু মিয়ার পুত্র মোঃ রতন মিয়া (১৮) ধর্ষণ করে। এরপর ধর্ষিত কন্যাকে বিবাহ করিবে বলিয়া সালিশে সিদ্ধান্ত হয়। তবে বধু হিসাবে ঘরে তোলতে সময়ক্ষেপন শুরু করে। আমার মেয়ে ৩মাসের অন্তঃস্বত্ত¡া হওয়ার পর তাদেরকে অনুনয়বিনয় করিয়া বলিয়াও সুরাহা পাইনি। বিগত ৭মাসে ৪/৫টি সালিশ দরবার হয়েছে।

এ ঘটনায় ধর্ষণের অভিযোগে মোঃ রতন মিয়া (১৮) কে ও সালিশের নামে কালক্ষেপন করায় দায়ে রতনের বাবা মোঃ বাচ্চু মিয়া (৪০), মৃত ঈমান আলীর পুত্র মোঃ হাশিম উদ্দিন (৫০) ও মোঃ মুন্নাফ (৫২) কে আসামী করে ভিকটিমের বাবা গৌরীপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। পুলিশ মোঃ মুন্নাফ (৫২) পুলিশ গ্রেফতার করে জেলহাজতে প্রেরণ করেছে। আসামীরা জানান, রতনের ওপর আনিত অভিযোগ মিথ্যে। এ সন্তান কার আগে সেটা যাছাই করতে হবে।

ঘটনা তদন্তে যান বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ গৌরীপুর শাখার সাধারণ সম্পাদক মমতাজ বেগম ও সাংগঠনিক সম্পাদক সবিতা দাস। তারা জানান, মেয়েটি অন্তঃস্বত্ত¡া হয়েছে। ছেলেপক্ষের অস্বীকৃতির কারণেই আপোষ করা যায়নি। গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচাজ দেলোয়ার আহম্মদ জানান, মামলার তদন্ত ও আসামী গ্রেফতারে অভিযান চলছে।